প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খালেদা জিয়াকে পদ্মা সেতুতে ফেলে দিতে বলেছেন …সৈয়দপুরে মির্জা ফখরুল


এসএপ্রিন্স/মিজানুর রহমান মিলনঃ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের লুটপাটের কারণে লুটপাটের দেশে পরিণত হয়ে দেশ আজ ধ্বংসের দিকে যাচ্ছে। তাদের লুটপাটের দায় চাপানোর চেস্টা করা হচ্ছে জনগণের ওপর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপি চেয়ারপারসন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে পদ্মা সেতুতে ফেলে দেয়াসহ শান্তিতে নোবেল বিজয়ী ড. ইউনুসকে পদ্মায় চুবিয়ে উঠানোর হুমকি দিয়ে এখন অরাজনৈতিক বক্তব্য দিচ্ছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদি দল (বিএনপি) সৈয়দপুর রাজনৈতিক জেলা শাখা আয়োজিত বিশাল কর্মী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি ওইসব কথা বলেন। শহরের শহীদ ডা. জিকরুল হক সড়কস্থ দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সৈয়দপুর জেলা বিএনপির আহবায়ক আলহাজ্ব অধ্যক্ষ আব্দুল গফুর সরকার।
সমাবেশে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আরও বলেন, আওয়ামীলীগের লুটপাটের কারণে দেশ এখন তলাবিহীন ঝুড়িতে পরিণত হচ্ছে। বিদ্যুতের দাম ৫৮ ভাগ বৃদ্ধির প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। তাদের লুটপাটের টাকা বিদেশে পাচার করা হয়েছে। তাদের কারণে দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ধ্বংস হয়ে গেছে। ডলারের মুল্য ১০০ টাকা ছাড়িয়েছে। কমে গেছে রিজার্ভ মানি। মহাসচিব বলেন, আমরা দেশবাসি আশঙ্কা করছি আমাদের অবস্থা কি শ্রীলঙ্কার মতো হচ্ছে ! তিনি বলেন, এই সরকার ক্ষমতায় আসার পরেই লুটপাট শুরু করায় দেশের বারটা বেজেছে। তারা জনগণের কন্ঠরোধ করতে একের পর এক গণবিরোধী আইন করেছে। ফলে মানুষের কথা বলার স্বাধীনতা আর নেই। মির্জা ফখরুল বলেন, সারাদেশে বিএনপির অসংখ্য নেতাকর্মীকে গুম করা হয়েছে। যাদের কোন খোঁজ আজও মেলেনি। হত্য করা হয়েছে শতশত নেতাকর্মীকে।
বিনা অপরাধে আপোসহীন নেত্রী সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারান্তরীন করে রেখেছে এই সরকার। হামলা মামলা দিয়ে হাজার হাজার বিএনপি ও অঙ্গদলের নেতাকর্মীদের জেলে আটক রাখা হয়েছে। ফ্যাসিস্ট এই সরকার বিভিন্ন আইনে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা দিয়ে বিরোধীদলকে দমন করছে। বিচার বিভাগকে ধ্বংস করে নির্বাচন ব্যবস্থা তাদের হাতে নিয়ে দিনের ভোট রাতে করছে। তাই এ অগণতান্ত্রিক এ সরকারের হাত থেকে মুক্তি পেতে আন্দোলনের কোন বিকল্প নেই। সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে ক্ষমতা হস্তান্তরসহ সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য রাজপথে লড়াই সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার আহবান জানিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের সকল নেতাকর্মী ও দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান। বিএনপি নেতা প্রভাষক শওকত হায়াত শাহ’র সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল খালেক, ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকার পুত্র প্রকৌশলী ইশরাক আহমেদ, সৈয়দপুর জেলা বিএনপির সদস্য সচিব শাহীন আকতার, বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিউর রহমান, বিএনপি নেতা জিয়াউল হক জিয়া, কাজী একরামুল হক,শামসুল আলম প্রমুখ।
এর আগে সৈয়দপুর জেলা বিএনপি কার্যালয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সদ্য প্রয়াত রংপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বিপুর স্ত্রী ও তার সন্তানদের সাথে কথা বলেন। এসময় তাদেরকে শান্তনা দেয়াসহ দলের নেতাকর্মীরা তার পরিবারের পাশে থাকবে বলে আশ্বাস দেন। পরে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে প্রয়াত নেতা বিপুর স্ত্রীর হাতে সহায়তার চেক তুলে দেন।
এসময় উত্তর ছিলেন রংপুর জেলা বিএনপি নেতা সাইফুল ইসলাম, আনিসুর রহমান লাকু, সামসুজ্জামান সামু প্রমুখ। কর্মী সমাবেশে রংপুর, সৈয়দপুর জেলা বিএনপিসহ যুবদল, ছাত্রদল, তাতীঁদল, কৃষকদল, মৎস্যজীবীদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ওলামাদল কৃষকদলসহ সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
এরআগে মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ তার সফর সঙ্গীরা ঢাকা থেকে বিমানযোগে সৈয়দপুরে এলে বিমানবন্দরে দলের নেতাকর্মীরা তাদের ফুল দিয়ে বরন করে নেন। পরে শোভাযাত্রা সহকারে তাদের দলীয় কার্যালয়ে নিয়ে আসেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top