এ এক অনন্য কালো ইতিহাস

FB_IMG_1607953914741.jpg


ডেস্ক।
মেয়েটির স্তনের একটি অংশ কাটা ছিল, লালচে দগদগে জমানো রক্তে সারা শরীর ছিল ভেজা। মাটির ঢিপির পাদদেশে মেয়েটির চোখ বাঁধা ক্ষত-বিক্ষত লাশ পড়ে ছিল। মেয়েটির মুখ ও নাকের কোন আকৃতি নেই, নরপিশাচেরা অস্ত্র দিয়ে তা কেটে খামচিয়ে তুলে নিয়েছিল। মেয়েটি কে জানেন? তিনি হলেন সাংবাদিক সেলিনা পারভীন, ১৯৭১ সালের ১৩ ডিসেম্বর সকালে কুলাংগার হায়েনারা তুলে নিয়ে গিয়েছিল সাংবাদিক সেলিনা পারভীনকে। শীতের সকালে ছোট ছেলে সুমন জাহিদকে গোসল করাবার জন্য শরীরে তেল মাখিয়ে দিচ্ছিলেন তিনি। চুলায় তখন রান্না চড়ানো ছিল দরজায় হাজির হলো ওরা। শাড়িটাও বদলাতে দেয়নি তাকে ওই পিশাচের দল। ঐ মুহুর্তে ঐ অবস্থাতেই যাবার আগে ছেলে সুমনের মাথায় হাত বুলিয়ে মা শুধু এতোটুকু বলেছিলেন, সুমন তুমি মামার সাথে খেয়ে নিও। আমি যাব আর চলে আসব।
সুমনের কাছে দেয়া কথা মা আর রাখতে পারেননি আর ফিরে আসেনি ছোট্ট সুমনের কাছে। এখনো হয়তো সুমন তার মায়ের অপেক্ষাতে আছে।”” আজ ১৪ ডিসেম্বর, শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস
বিনন্র শ্রদ্ধা হে মহীয়সী নারী। গভীর ভালবাসা আপনার পরিবারকে। আপনার ছোট্ট সেই সুমনকে। আপনারাই রক্তিম বাংলাদেশ। আপনাদের ত্যাগেই আমাদের গর্বিত জন্মভূমি স্বাধীন বাংলাদেশ।
বিদ্রঃ সুমন জাহিদ খুন হয়েছিল ২ বছর হল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top