কিশোরগঞ্জে ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত

20201214_173503.jpg


বিশেষ প্রতিনিধিঃ নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ থানার আয়োজনে পুলিশের সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে ‘ওপেন হাউজ ডে’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সকাল ১১ ঘটিকায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ এস আই জুয়েল ইসলামের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জনাব সাইফুল ইসলাম। কিশোরগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়ালের সভাপতিত্ব প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম। পবিত্র কোরআন তেলায়ত করেন, মাওঃ একরাজুল ইসলাম। গীতা পাঠ করেন, শ্রী তরনী কান্ত রায়। বক্তব্য রাখেন, প্রাণকৃষ্ণ রায়, খায়রুল আলম( মরহুম আইয়ব আলী চেয়ারম্যানের বড় ছেলে) সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান রশিদুল ইসলাম। দিক নির্দেশনা মূলক বক্তব্য রাখেন, অফিসার ইনচার্জ তদন্ত মফিজুল ইসলাম। উপস্থিত ছিলেন, চেয়ারম্যান আবু সায়েম লিটন, সাংবাদিক আব্দুল গাফ্ফার রাজু, কিশোরগঞ্জ প্রেস ক্লাবের আহবায়ক আবু তাহের, যুগ্ন আহবায়ক রউফুল আলম।
দেখা যায়, থানার সীমানা প্রাচীরের দেয়ালে লেখা আছে, ‘পুলিশ জনতা, জনতাই পুলিশসহ নানা স্লোগান। ফটক দিয়ে ঢোকার সময় হাতের ডান দিকে একটি সেবা মূলক ছাউনি। ছাউনিতে লেখা আছে নো মাস্ক নো সেবা, নো মাস্ক নো এন্ট্রি এবং পাশের বোর্ডে লেখা আছে হেলফ ডেস্ক ও নো পার্ক। হাতের বামে ঝকঝকে পরিষ্কার নিরিবিলি জায়গায় তৈরি করা হয়েছে একটা ফ্রিজিং হিমঘর এবং থানার পিছনে গেলে দেখা মেলে মনোরম পরিবেশসহ ফুলবাগান। থানার ভিতরে ওসির কক্ষে ডুকতে চোখে পড়ে সাধারণ মানুষদের জন্য আলাদা চেয়ার, আবার মুক্তিযোদ্ধাদের আলাদা সংরক্ষিত আসন, প্রতিবন্ধীদের সংরক্ষিত আসন, শিশু বাচ্চাদের জন্য খেলনা চেয়ারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এসব দৃশ্য চোখে পড়বে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ থানায় ঢুকলে। অথচ মাস পাঁচেক আগেও অনেকের বিরক্তির কারণ ছিল এই থানা প্রাঙ্গণ। সারাক্ষণ জটলা লেগে থাকার পাশাপাশি পরিবেশ ছিল নোংরা। দুর্গন্ধ থাকতো নিয়মিত। মুল ফটক দিয়ে ঢুকতে দেখা যেতো থানার চারদিকে ময়লা আবর্জনায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে নোংরা পরিবেশ তৈরি হয়ে পড়ে আছে । কিন্তু সেই দৃশ্য এখন উধাও। এখন থানার পাশ দিয়ে গেলেই মন জুড়িয়ে যায়। প্রায় থানার চতুর্দিকে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা হওয়ায় সবার কাছে এখন দৃষ্টিনন্দন।
সরেজমিনে দেখা যায়, থানার ভেতরে খালি জায়গায় লাগানো হয়েছে হরেক রকমের ফুলের গাছ ও সরিষা, সরিষা গাছে ফুল, ফুলের সুগন্ধি যেটি প্রকৃতি প্রেমীদের মন ছুঁয়ে যাবে। জরাজীর্ণ থানার পরিবেশ এখন বদলে গেছে। সংস্কারের মাধ্যমে ফুটে উঠেছে সৌন্দর্য ও দৃষ্টিনন্দন। থানার সামনে এক পথচারীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আগে থানার পাশ দিয়ে আমরা ভয়ে হাঁটতাম না। ওই এলাকাটা সবসময় নোংরা থাকতো। কিন্তু বর্তমানে দায়িত্বে আসা ওসি আব্দুল আউয়াল স্যারের অক্লান্ত পরিশ্রমে থানা এখন দৃষ্টিনন্দন। নেই কোনো ঝুটঝামেলা, মুগ্ধকর পরিবেশ আর সৌন্দর্যের অপরুপ শোভায় পরিপূর্ণ। অনুষ্ঠানে অফিসার ইনচার্জ তদন্ত মফিজুল ইসলাম তার বক্তব্যে বলেন, পুলিশ জনগণের শত্রু নয়, বন্ধু। পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করে সঠিক সেবা গ্রহণ করুন। পুলিশ জনগণের সেবক হয়ে সবসময় পাশে থেকে কাজ করছে বলে জানান তিনি।
সাংবাদিক রউফুল আলম বলেন, এখন আমাদের থানার পাশ দিয়ে হেটে বেড়াতে খুবই ভালো লাগে। দেয়ালে লেখা বাণীগুলো প্রায়ই পড়ি। আসলে কিশোরগঞ্জ থানা এখন নীলফামারীর অন্য থানাগুলোর মধ্যে রোল মডেল।
কিশোরগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়াল বলেন, সেবা গ্রহিতাদের জন্য সেবা ছাউনির ব্যবস্থা করা হয়েছে। সেখানে জরুরি সেবা দেওয়া হয়। এমনকি থানার সামনে একটা হিমঘর তৈরি করা হয়েছে। সামনটা পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার মাধ্যমে সৌন্দর্য ফুটে তোলা হচ্ছে। সেই সঙ্গে থানার পিছন দিকে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা করে ফুলের বাগান করা হচ্ছে। যাতে থানায় ভয়ে নয়, থানার ভিতরে সৌন্দর্য উপভোগ করতেও অনেকে আসে। চুরি, ডাকাতি, খুন, রাহাজানি শিশু ও নারী নির্যাতন কমে গেছে। দু-একটা মামলা আদালতে হলে ও তদন্তে মিথ্যা প্রমাণিত হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, মাদকের সঙ্গে কোনো আপোষ নেই। মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারীসহ যে কোনো অপরাধীদের ব্যাপারে তথ্য দেওয়ার জন্য আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে জন প্রতিনিধি, সাংবাদিক, শিক্ষক, রাজনৈতিক ব্যক্তি, কমিউনিটি পুলিশিং নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top