পাঁচ জেলার তিস্তার তীর থেকে ২৩০ কিলোমিটার ব্যাপী মানববন্ধন

Nilphamari-Tista-pic.jpg


এসএপ্রিন্সঃ তিস্তা নদীর ভাঙন রোধ, নদী পুনঃখনন, তিস্তা নদীর পানির ন্যায্য হিস্যা, ভাঙন কবলিত হাজার হাজার পরিবারকে পুনর্বাসনের দাবিতে ২৩০ কিলোমিটার ব্যাপী মানববন্ধন করেছেন তিস্তা পারের হাজার হাজার মানুষ। রবিবার (১ নভেম্বর) সকাল ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত ঘন্টা ব্যাপী নীলফামারী, লালমনিরহাট, রংপুর, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম জেলায় তিস্তা তীরবর্তী এলাকার দুই ধারে এ মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়।
নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের ঝাড়সিংহেশ্বর ২নং টি বাধ তিস্তার শূণ্য পয়েন্ট স্থান থেকে নীলফামারী জেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত তিস্তার ১৩টি স্থানসহ ৮৫টি স্থানে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে অংশ নেন তিস্তা বাঁচাও নদী রক্ষা কমিটির নেতৃবৃন্দসহ স্থানীয় এলাকাবাসী। মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, ‘প্রতি বছর তিস্তা নদীর অব্যাহত ভাঙনে হাজার হাজার পরিবার বাস্তুভিটা ও জমি হারিয়ে সর্বস্বান্ত হচ্ছে। অন্যদিকে শুষ্ক মৌসুমে তিস্তার পানি একেবারে কমে যায়, ফলে নদীর স্বাভাবিক প্রবাহ বন্ধ হয়ে যায়। এজন্য ভারতের উজানে বাঁধ দিয়ে তিস্তা নদীর পানিপ্রবাহ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এ অবস্থায় দীর্ঘদিন ধরে নদী পুনঃখনন না হওয়ায় মরা খালে পরিণত হচ্ছে। এ অবস্থায় জরুরি ভিত্তিতে তিস্তা খনন করে পানির প্রবাহ অব্যাহত রাখলে বর্ষা মৌসুমে ভাঙনের কবলে পড়তে হবে না।’
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘তিস্তা নদী বাংলাদেশ অংশে ১১৫ কিলোমিটার প্রবাহিত। এ অংশে প্রতিবছর বন্যা আর ভাঙনে লাখ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বন্যা ও ভাঙনের হাত থেকে মুক্তি চান নদী তীরবর্তী মানুষ।’ তিস্তা নদীর সুরক্ষা, দুই তীরের বন্যা-ভাঙন রোধ ক্ষতিগ্রস্থদের ক্ষতিপূরণের দাবিও জানান তারা।
মানববন্ধনে তিস্তা নদী পুনঃখননের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়। তিস্তা বাঁচাও, নদী বাঁচাও সংগ্রাম পরিষদের পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের সভাপতি ও ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বার আতিকুর রহমানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, সংগ্রাম পরিষদের ডিমলা উপজেলা শাখার সভাপতি গোলাম মোস্তফা, সদস্য বীল মুক্তিযোদ্ধা কোরবান আলী, নবীর উদ্দিন, অবিনাস রায়, হাফিজার রহমান প্রমূখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top