সাকিব-হাসানের বোলিংয়ে ১২২ রানে অলআউট ক্যারিবীয়রা


খেলাধুলা ডেস্ক ।। সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ৬ নতুন মুখ নিয়ে নেমেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তারুণ্যে নির্ভর করলেও সফরকারী দলটি বাংলাদেশের বিপক্ষে কোনও প্রতিরোধ দেখাতে পারেনি। অলআউট হয়েছে ১২২ রানেই।

অথচ কোণঠাসা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ভালো স্কোরের স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন রোভম্যান পাওয়েল ও কাইল মেয়ার্স। পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে ৫৯ রানও তুলে ফেলেছিল এই জুটি। ক্যারিবীয়দের এই প্রতিরোধ ভেঙেছেন মূলত অভিষিক্ত পেসার হাসান মাহমুদ। পাওয়েলকে গ্লাভসবন্দি করিয়েছেন মুশফিকের। অভিষেকের দিনেই সুবাস ছড়িয়েছেন এই পেসার। ২৮ রানে নিয়েছেন তিন উইকেট। অপর দিকে নিষেধাজ্ঞার শাস্তি শেষে ফেরা সাকিব ছিলেন পাদপ্রদীপে আলোয়। ৭.২ ওভারে মাত্র ৮ রান দিয়ে নিয়েছেন ৪ উইকেট। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে যা বাংলাদেশের কারো সেরা ওয়ানডে বোলিং। আরও দুটি উইকেট নিয়েছেন মোস্তাফিজ।

ম্যাচের শুরু থেকেই ক্যারিবীয়দের ওপর চাপ সৃষ্টি করে খেলেছে বাংলাদেশ। টস জিতে বল করতে নেমে দ্বিতীয় ওভারে সাফল্য তুলে নেন মোস্তাফিজ। তার দ্বিতীয় বলে লেগবিফোরের ফাঁদে পড়ে বিদায় নেন ওপেনার সুনিল আম্ব্রিস। রুবেলের প্রথম ওভারের শেষ বলে দিনের প্রথম ছয়টি মেরেছিলেন আম্ব্রিসই। কিন্তু দ্বিতীয় ওভারে আর সুবিধা করতে পারলেন না। মোস্তাফিজের ফুলার লেংথের বল ফ্লিক করতে গিয়ে পরাস্ত হন। শুরুতে আম্পায়ার আউট দিলেও রিভিউ নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু রিভিউতে তার আবেদন টেকেনি। বিদায় নেন ৭ রান করে।

চতুর্থ ওভারে মোস্তাফিজ তিন বল করার পরেই শুরু হয়েছিল বৃষ্টি। ফলে খেলা বন্ধ ছিল ঘণ্টা খানেক। বৃষ্টির পর খেলা শুরু হলে থিতু হতে পারেননি আরেক ওপেনার ডা সিলভাও। এবারও শিকারি মোস্তাফিজ। তার বুদ্ধিদীপ্ত বোলিংয়ে থার্ড ম্যানে অঞ্চলে ধরা পড়েন লিটন দাসের হাতে। আর ক্যাচটিও ছিল দর্শনীয়। সিলভা বিদায় নিয়েছেন ৯ রানে।

দ্রুত দুই উইকেট পড়ে যাওয়া সেই ধাক্কা সামলানোর চেষ্টায় ছিলেন অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ ও আন্দ্রে ম্যাকার্থি। জুটিও গড়ার চেষ্টা করছিলেন দুজন। পোক্ত হয়ে ওঠার আগেই এই জুটি ভেঙেছেন সাকিব আল হাসান। ১৩তম ওভারে সু্ইপ করতে গিয়ে একেবারে বোল্ড হয়ে বিদায় নেন ম্যাকার্থি। তিনি করেছেন ১২ রান। তার উইকেট তুলে নিয়েই ক্যারিবীয়দের আরও কোণঠাসা করে দেন সাকিব। দ্রততায় তুলে নেন আরও দুই উইকেট। ১৭তম ওভারে স্টাম্পড হয়ে বিদায় নেন অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ। তিনি ফিরেছেন ১৭ রানে। ১৯তম নতুন নামা এনক্রুমাহ বোনারকেও বিদায় দেন এলবিডাব্লিউতে।

তার পরেও পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সমান তালে স্কোরবোর্ডে রান জমা করতে থাকেন রোভম্যান পাওয়েল ও কাইল মেয়ার্স। বিপজ্জনক এই জুটিটাই ভেঙে দিয়েছেন অভিষিক্ত পেসার হাসান মাহমুদ। মুশফিকের গ্লাভসবন্দি করান পাওয়েলকে (২৮)। নতুন নামা রেইমন রেইফারও বিদায় নিয়েছেন তার বলে। হয়েছেন এলবিডাব্লিউ।

পুরোপুরি বিপর্যস্ত ক্যারিবিয়ানদের এর পরেও আশা দেখাচ্ছিলেন কাইল মেয়ার্স। ভালো ইনিংস গড়ার প্রত্যায় দেখা দিয়েছিল তার মাঝে। কিন্তু ব্যক্তিগত ৪০ রানে তাকে লিটনের ক্যাচ বানিয়েছেন মিরাজ।

এর পর আসা যাওয়ার খেলা শুরু হয় ক্যারিবীয়দের ব্যাটিংয়ে। নতুন নামা আকিল হোসেনকেও বিদায় দিয়েছেন অভিষিক্ত হাসান।

৩৩তম ওভারে সাকিব এসে শেষ উইকেট নিয়ে চতুর্থ উইকেট শিকার করেন সাকিব। ৩২.২ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইনিংস শেষ হয় ১২২ রানে।

শর্টলিংকঃ

About নিউজ ডেস্ক

View all posts by নিউজ ডেস্ক →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *