লকডাউনে জীবন থেমে নেই যুবক শিশু দেবনাথের


বিশেষ প্রতিবেদকঃ
জীবন থেমে নেই ৩৫ বছরের যুবক শিশু দেবনাথের। কারোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে তার একমাত্র আয়ের উৎস ক্ষুদে চায়ের দোকানটি লকডাউনের আয়তায় এসেছে। ঘরে বসে থাকলে দিন যাবে তার কিভাবে? তাই জীবনযুদ্ধে দমাবার পাত্র নন শিশু দেবনাথ। ফ্লাক্সে চা নিয়ে ফেরি করে বিকল্প আয়ের পথ খুঁজে নিয়েছে সে। করোনা সচেনতায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মুখে মাস্ক, হাতে পলিথিনের গেøাবস্ পরে একটি ভোগ্যপণ্যের দোকানে চা বিক্রির দৃশ্য চোখে পরেছে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ বাজারে।
কিশোরগঞ্জ বাজারের অদুরে যুগিপাড়ার প্রসিদ্ধ মিষ্টি-মন্ডা ব্যবসায়ী বিষাদু দেবনাথ তার বাবা। অনেক আগে তিনি দেহত্যাগ করেছেন। পৌত্রিক সুত্রে পাওয়া বাবার ব্যবসার হাল সে ছাড়তে পারেনি। ১ হাজার ২শ’ টাকা ভাড়া দিয়ে চা-মিষ্টির দোকান করত কিশোরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্ল্রেক্্েরর সামনে। ৫ সদস্যের সংসার চলছিল ভালই। কিন্তু করোনা পরিস্থিতি সব যেন উলোট-পালট করে দিল তাকে। কিন্তু থেমে নেই যুবক শিশু দেবনাথ। লকডাউনের মধ্যেও জরুরী নিত্য প্রয়োজনিয় দোকানগুলোতে ফ্লাক্্ের চা নিয়ে সে ফেরি করে। তবে সে করোনা ভাইরাসের ব্যাপারে খুবই সচেতন। বাজার থেকে সে ওয়ান টাইম কাপ নিয়েছে। ৩ ফুট দূর থেকেই সে চা বিক্রি করে। মুখে মাস্ক ও হাতে পলিথিনের গেøাবস্। বাজারে হ্যান্ড গেøাবস্ সংকটের কারণেই নাকি এমনটি তাকে করতে হয়েছে।
৫দিন হলো সে এই আয়ের পথ বেচেঁ নিয়েছে। তিনি জানান, ‘মুই চা ব্যেচেয়া ব্যাহে আইজ সাড়ে ৯শ’ টাকা পাচু। এ্যর আগে কোনো দিন ১১শ’ টাকা পর্যন্ত পাচনু। সউক য্যায়া থুইয়া আড়াইশ টাকা পর্যন্ত টিকে। তাও ব্যাহে সংসারত ধকপক পরে।’ শিশু দেবনাথের ব্যবসার একমাত্র সাথী হলো তার অর্ধাঙ্গিনী মমতা বালা। সংসারে শত ব্যস্ততার মাঝে কান খাড়া করে রাখতে হয় কখন কর্তাবাবু আসে খালি ফøাক্্র নিয়ে। কারণ প্রতিদিন বেশ ক’বার তাকে ফ্লাক্্র ভর্তি করতে হয়। এই কাজে তার স্কুল পড়–য়া ছেলে কৃষ্ণ দেবনাথ(১১) উনুন জ্বালানোর কাজে সাহায্য করে। দেড় বছরি মেয়ে রিতিকাকে কোলে নিয়ে সব কিছুই সামলাতে হয় মমতা বালাকে। কিন্ডারগার্টেন পড়–য়া মোহন দেবনাথের(৬) প্রায় সব সময় লেগে থাকা ছোটখাট আবদারও দেখতে হয় তাকে।
করোনা ভাইরাস একটি মারাতœক সংক্রমিত ভাইরাস, সে ব্যাপারটি শিশু দেবনাথ ভাল করেই জানে। তাই সে চা বিকিকিনির সময় ভীড় এড়িয়ে চলে। পরিবারকে বাঁচাতে গিয়ে যাতে অনাকাংখিত বিপদের মুখে না পরে সে ব্যাপারে একেবারে সজাগ। দিনে কয়েক বার সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, কাপড়-চোপড় পরিস্কার রাখাসহ করোনা প্রতিরোধে প্রয়োজনিয় সব কিছুই করে শিশু দেবনাথ। অবশ্য পরিবারের লোকজন তাকে সহযোগিতা করে। ভয়াবহ করোনা ভাইরাসের ছোবলে তার সংসারের যেন ছন্দপতন না হয় সৃষ্টিকর্তার কাছে সে প্রার্থনাও করতে ভুলেনা শিশু দেবনাথ।

শর্টলিংকঃ

About নিউজ ডেস্ক

View all posts by নিউজ ডেস্ক →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *