বজ্রপাতে নীলফামারী-দিনাজপুর-পঞ্চগড় জেলায় ৫ জন নিহত ও আহত ৫


এসএপ্রিন্সঃ সোমবার বিকালে বজ্রপাতে বাবা-ছেলেসহ পাঁচজনের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেছে। এঘটনায় আহত হয়েছে পাঁচজন।
নীলফামারীতে বজ্রপাতে মজিদুল ইসলাম (৩২) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। জেলা সদরের কুন্দুপুকুর ইউনিয়নের উত্তর বালাপাড়া গ্রামের এ ঘটনা ঘটে। সে মৃত সহির উদ্দীনের ছেলে।
একই সময় পৃথক স্থানে বজ্রপাতে আরো পাঁচ জন আহত হয়েছে বলে জানান, সদর থানার ওসি মমিনুল ইসলাম।
আহত পাঁচ জনের মধ্যে সদর উপজেলার পাটকামুড়ি গ্রামের দিবা রাণী চৌধুরী (২০), রামনগর গ্রামের আব্দুল আউয়াল (১৬) ও টুপামারী চৌধুরীপাড়া গ্রামের রুবেল ইসলামকে (২২) নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
নীলফামারী সদর থানার ওসি মমিনুল ইসলাম বলেন, বজ্রপাতে কুন্দুপুকুরে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। একই সময় উপজেলা রামনগর, টুপামারী ইউনিয়নের বজ্রপাতে আরো পাঁচ ব্যক্তি আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে তিনজন নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। কুন্দপুকুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান আলী চৌধুরী জানান, জমি থেকে পাকা ধান নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন মজিদুল ইসলাম। এ সময় বজ্রপাতে আহত হন ওই কৃষক।
স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। তিনি জানান, একই সময় ইউনিয়নের পাটকামুড়ি গ্রামে বজ্রপাতে আরো তিন জন আহত হন।
এদের মধ্যে দিবা রাণী চৌধুরীকে (২০) নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিরা এলাকায় প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।
এদিকে দিনাজপুরের খানসামায় বজ্রপাতে এক কৃষক মারা গেছেন। তিনি উপজেলার খামারপাড়া ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের হাজীপাড়ার মৃত কছিমদ্দিনের ছেলে ফজলুল হক (৬০)।
সোমবার বিকেল সাড়ে ৩ টায় মাঠে কাজ শেষে বাড়ির বাইরে টিউবওয়েলে গোসল করতে গেলে ঝড়-বৃষ্টির সময় বজ্রপাতে তিনি মারা যান।
খামারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাজেদুল হক সাজু ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। নিহতের পরিবার ও প্রতিবেশীদের বরাত দিয়ে তিনি জানান, ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের কৃষক ফজলুল হক বাইরে কাজ শেষে বাড়িতে গোসল করতে গেলে বজ্রপাতে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে বাড়ির লোকজন তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্মরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
অপরদিকে পঞ্চগড়ে পৃথক বজ্রপাতে বাবা-ছেলেসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার জেলার তেঁতুলিয়া ও বোদা উপজেলায় এদের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেন, তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুর ইউনিয়নের খুনিয়াগছ গ্রামের মোহাম্মদ আলী (৫৫) ও তার ছেলে আনিসুর রহমান (৩৫)। বোদা উপজেলার বড়শশী ইউনিয়নের চিলাপাড়া গ্রামের মনসুর আলমের ছেলে রিপন ইসলাম (১৪)।
তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোকসেদ আলী জানান, খুনিয়াগছ গ্রামে মোহাম্মদ আলী (৫৫) ও তার ছেলে আনিসুর রহমান (৩৫) নিজেদের ক্ষেতে বোরো ধান কাটতে গিয়েছিলেন। এ সময় আকস্মিক বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে।
গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে যায় স্থানীয়রা। সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাদেরকে মৃত ঘোষণা করেন।
হাসপাতালের মেডিক্যাল অফিসার ডা. আতাহার সিদ্দিকি জানান, হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই তাদের মৃত্যু হয়েছে।
এদিকে, দেবীগঞ্জের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হাসিনুর রহমান জানান, দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বজ্রপাতে আহত এক কিশোর চিকিৎসাধীন ছিল। পরে সেখানেই তার মৃত্যু হয়।
নিহত রিপন ইসলাম (১৪) বোদা উপজেলার বড়শশী ইউনিয়নের চিলাপাড়া গ্রামের মনসুর আলমের ছেলে। সে ভাউলাগঞ্জ আলিম মাদরাসার দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল।
ক্ষেত থেকে হাঁস তাড়িয়ে বাড়ি আনতে গিয়ে রিপন বজ্রপাতে আহত হয়। পরে তাকে দেবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয় বলে বাবা মনসুর আলম জানান।

শর্টলিংকঃ

About নিউজ ডেস্ক

View all posts by নিউজ ডেস্ক →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *