নীলফামারী শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর সহকারি প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ তদন্তে মিথ্যা প্রমানিত


এসএপ্রিন্সঃ
নীলফামারী শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারি প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে আনিত অনিয়মের বিভিন্ন অভিযোগ অবশেষে তদন্তে মিথ্যা প্রমানিত হলো। অভিযোগের ভিত্তিতে দুই সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি সরেজমিনে তদন্ত করে অভিযোগের কোন সত্যতা খুজে পায়নি। অভিযোগকারী হিসেবে যার নাম ও মুঠোফোনের নম্বর ব্যবহার করা হয়েছে এরকম কোন ঠিকাদারের অস্তিত্বও খুজে পায়নি তদন্তকারী কর্তৃপক্ষ।
নীলফামারী শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারি প্রকৌশলী আবু তাহেরের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ এনে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠাণ মেসার্স মহছেনা এন্টারপ্রাইজের নাম ব্যবহার করে অধিদফতরের বিভিন্ন কর্মকর্তা কাছে লিখিত অভিযোগ করা হয়। এ অভিযোগের তদন্তে নামেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। গত ১৮ আগস্ট শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের রংপুর সার্কেলের তত্ত¡াবধায়ক প্রকৌশলী মেনহাজুল হক ও নীলফামারীর নির্বাহী প্রকৌশলী এস এম শাহিনুর ইসলাম সরেজমিন বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প পরিদর্শন করেন। এ সময় অভিযোগকারীকে তদন্তে উপস্থিত থাকতে বলা হলেও অভিযোগকারী হিসেবে কেউ উপস্থিত ছিলেন না।
তবে অভিযোগকারী হিসেবে নাম ব্যবহার করা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠাণ মেসার্স মহছেনা এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধীকারী মাহাবুল ইসলাম তদন্ত কমিটিকে বলেন, অভিযোগটি তার নয়। নীলফামরীতে কর্মরত সহকারি প্রকৌশলী আবু তাহেরের বিরুদ্ধে কোন প্রকার অনিয়ম ও দূর্নীতির বিরুদ্ধে আমার প্রতিষ্ঠান বা আমি কোথাও কোন প্রকার লিখিত অভিযোগ করিনি। বিভিন্ন ঠিকাদারের পক্ষে মাহাতাব আলী মন্ডল নামের যে ব্যক্তি আমার মুঠোফোনের নম্বর ব্যবহার করে মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছেন আমি এর স্ষ্ঠু তদন্ত দাবী করছি। কে বা কারা আমার ও আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুন্ন করার পায়তারা করছে। এদিকে তদন্তকালে উপস্থিত ঠিকাদারগনও অভিযোগটির বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বলে দাবী করেন।
সহকারি প্রকৌশলী আবু তাহের বলেন, একটি কুচক্রি মহল মিথ্যা ভিত্তিহীন অভিযোগ দিয়ে আমার সুনাম ক্ষুন্ন করার পায়তারা করছে। সামনে পদোন্নতি যাতে না হয় সে জন্য কুচক্রমহলটি উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে অভিযোগসহ ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করায়। যা মিথ্যে প্রমানিত হলো।
শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর নির্বাহী প্রকৌশলী এসএম শাহিনুর ইসলাম বলেন, গত অর্থ বছরে দিনাজপুর জোন হতে বিভক্ত হয়ে নীলফামারীকে নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয় হিসেবে ঘোষনা করা হয়। অত্র দপ্তরের সহকারি প্রকৌশলী আবু তাহেরের বিরুদ্ধে তদন্ত কর্মকর্তার কাছে অভিযোগকারী তার স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। অভিযোগকারীর নামের সাথে মুঠোফোনের নম্বরের কোন মিল নেই।
রংপুর সার্কেলের তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মোঃ মেনহাজুল হক বলেন, সহকারি প্রকৌশলী আবু তাহেরের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের লিখিত অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ে মাঠ পর্যায়ে পরিদর্শন করে তেমন কোন অনিয়ম বা দুর্নীতি সত্যতা পাওয়া যায়নি। তবে অভিযোগকারী হিসেবে যার নাম ও মুঠোফোন নম্বর ব্যবহার করা হয়েছে তা মিথ্যে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *