নীলফামারীর কুষ্ঠ হাসপাতালের রোগি সেবা থেকে বঞ্চিত


বিশেষ প্রতিবেদকঃ এক সময়ের সুনামধন্য নীলফামারী সরকারী ২০ শয্যা কুষ্ঠ হাসপাতালের এখন বেহাল দশা। জেলা সদরের পলাশবাড়ী ইউনিয়নের নটখানায় অবস্থিত হাসপাতালটি ১৯৬৫ সালে আট একর জায়গায় নির্মাণ করা হয়।
দেশের উত্তরাঞ্চলের ৮ জেলার বাহিরেও কুষ্ঠ রোগিরা এই হাসপাতালে সেবা নিতে আসতো। বর্হিবিভাগে থাকাতো হাজারো রোগির ভীড়। কিন্তু জনবল ও চিকিৎসক সংকটের কারনে গড়ে ৫০-৬০জন হাসপাতালের বর্হিবিভাগে চিকিৎসা নিতে আসেন। আর ইনডোরে গড়ে ১২-১৩ জন রোগী ভর্তি থাকেন। চিকিৎসকের পদ শুন্য থাকায় হাসপাতাল থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে ওইসব রোগি। এমন পরিস্থিতির জন্য চিকিৎসক ও জনবল সংকটকে দায়ি করছেন রোগির স্বজন ও স্থানীয়রা।
সুত্র জানায়, নীলফামারীতে এক সময় এই রোগের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়ায় সরকারীভাবে হাসপাতালটি স্থাপন করা হয়। দেশের ৬৪ জেলার মধ্যে ঢাকা, সিলেট ও নীলফামারীতে এর কার্যক্রম চালু আছে।
সরেজমিনে দেখা যায়, কুষ্ঠ হাসপাতালে ৪২জন কর্মকর্তা-কর্মচারী বিপরীতে কর্মরত রয়েছেন, মাত্র ২০জন। কিন্ত ওই ২০জনের মধ্যে ১২জনকে বিভিন্ন হাসপাতালে প্রেষনে বদলি করা হয়। বর্তমানে ৮জন দিয়ে কুষ্ঠ হাসপাতালটি চলছে। এর মধ্যে আছেন (প্রেষনে) মেডিকেল অফিসার একজন, নার্স একজন, সহকারী নার্স একজন, এমএলএসএস দুইজন, আয়া একজন, মশালচী একজন, ঝাড়–দার একজন।
শুন্য পদগুলির মধ্যে, জুনিয়র কনসালটেন্ট (লেপ্রসী) একজন ও মেডিকেল অফিসার (কর্মকর্তা) ৩জন মোট চারজন। কুষ্ঠ নিয়ন্ত্রন কর্মকর্তা একজন ও মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব) দুইটি পদই শুন্য। সিনিয়র স্টাফ নার্স (কর্মকর্তা) মঞ্জুরীকৃত পদ ১৫টির বিপরীতে কর্মরত ৮জন বাকী ৭জনের পদ শুন্য। আবার ওই আট জনের মধ্যে কুষ্ঠ হাসপাতালে একজনকে রেখে বাকীদের ডেপুটেশনে নীলফামারী সদর আধুনিক হাসপাতালে যোগদান করে।
এদিকে, সহকারী নার্স ৫জনের বিপরীতে কর্মরত একজন। অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার অপারেটর পদটি শুন্য। এমএলএসএস (অফিস সহায়ক) ৬জনের বিপরীতে কর্মরত দুইজন। বাকী ৪জনকে অন্যত্র প্রেষনে বদলি করা হয়। আয়া ৩ জনের বিপরীতে কর্মরত দুইজন। এরমধ্যে একজনকে প্রেষনে সরিয়ে জেলার কিশোরগঞ্জ হাসপাতালে পাঠানো হয়। কুক/মশালচী ২জনের বিপরীতে কর্মরত একজন, বাকী একজনকে জেলার ডিমলা হাসপাতালে প্রেষনে বদলি করা হয়। ঝাড়–দার (পরিচ্ছন্নতাকর্মী) তিনজনের বিপরীতে কাজ করেন একজন। বাকী দুইজনকে অন্যত্র প্রেষনে বদলি করা হয়।
ওই হাসপাতালের পরিচ্ছন্নতা কর্মী কবির হোসেন জানান, আগে তিনজন কাজ করেও সামাল দেওয়া যেত না। আর এখন তিনজনের কাজ একাই করতে হয়। বাকীদের বড় স্যারেরা বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠিয়েছে।
একই হাসপাতালের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মচারী জানান, হাসপতালের রোগীদের পরীক্ষা নিরীক্ষা একেবারেই বন্ধ। ওই পদে জনবল না থাকায় ইনডোরের রোগিরা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অন্যদিকে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি অকেজো হয়ে পড়ে আছে।
হাসপাতালের রোগি শুকারু বর্মন, বদির উদ্দিন, আজাদ আলী বলেন, এখানে খাওয়া দাওয়ার কোন সমস্যা নেই। তবে ডাক্তার ও নার্সের সংখ্যা কম থাকায় প্রয়োজনীয় সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছি।
সদরের পলাশবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মমতাজ আলী প্রামাণিক জানান, সরকারের দেয়া খাবার, স্টেশনারী, পরিস্কার পরিচ্ছন্ন ও এমএসআর (যন্ত্রপাতি, ঔষুধ, ল্যাবরেটরি জিনিশপত্র) বাবদ পর্যাপ্ত বরাদ্দ আছে। শুধুমাত্র জনবলের অভাবে রোগিরা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আশা করি, জনবান্ধব এই সরকার কুষ্ঠ রোগিদের সুচিকিৎসার কথা বিবেচনা করে মঞ্জুরীকৃত পদ সমুহ পূরণ ও প্রেষনকৃত কর্মচারীদের পূনঃ বহাল করে হাসপাতাটি পুরোদমে সচল করা সম্ভব।
হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা (মেডিকেল অফিসার) ডা. ভির্জিনিয়া শুক্লা বিশ্বাস জানান, আমি সবে মাত্র এই হাসপাতলে প্রেষনে যোগদান করেছি। তাই এসব বিষয় কিছুই জানিনা বলে তার দায় এড়িয়ে যান।
এ ব্যাপারে, কুষ্ঠ হাসপাতালের অতিরিক্ত দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা ডা. আবু হেনা মোস্তফা কামাল জানান, আউটডোর ও ইনডোরে রোগির সংখ্যা কম থাকায় কয়েকজনকে সরিয়ে জেলার অন্যান্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে হাসপাতালে রোগির সংখ্যা বাড়লে তাদের পূনরায় কর্মস্থলে ফিরিয়ে নেয়া হবে।
সিভিল সার্জন ডা. জাহাঙ্গীর কবির মোবাইল ফোনে বলেন, আমি সদ্য এই জেলায় যোগদান করেছি। জনবল সংকট থাকলে তা কর্তৃপক্ষের নজরে এনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। রোগির বর্তমান পরিস্থির ওপর নির্ভর করে সিন্ধান্ত নেয়া হবে।

শর্টলিংকঃ

About নিউজ ডেস্ক

View all posts by নিউজ ডেস্ক →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *