Wed. May 18th, 2022

এসএপ্রিন্সঃ নীলফামারীর ডোমারে সদ্য নির্মিত উত্তরাঞ্চলের একমাত্র আঞ্চলিক বাঁশ গবেষনা ও প্রশিক্ষন কেন্দ্রটি এখন উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে।
ডোমার উপজেলা পরিষদের পিছনে বন বিভাগের দুই একর জমিতে প্রতিষ্ঠিত সোয়া ১৭ কোটি টাকা ব্যায়ে নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার আঞ্চলিক বাঁশ গবেষনা ও প্রশিক্ষন কেন্দ্র (আরবিআরটিসি) শীর্ষক প্রকল্পের সকল কাজ সম্পন্য হয়েছে। শুধু উদ্বোধনের অপেক্ষা।
পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রনালয়ের আওতায় বাংলাদেশ বন গবেষনা ইনস্টিটিউট, চট্টগ্রাম এর বাস্তবায়নে আঞ্চলিক বাঁশ গবেষনা ও প্রশিক্ষন কেন্দ্রটির নির্মান ব্যায় ধরা হয়েছে ১৭ কোটি ২২লাখ ৯১হাজার টাকা। প্রকল্পের আওতায় রয়েছে, ল্যাবরেটরি স্থাপন ও প্রশিক্ষন কেন্দ্রসহ একটি চারতলা অফিস ভবন, আরো রয়েছে রংপুর বিভাগের ৫৮টি উপজেলার এক হাজার ৮শত জনকে বাঁশের বিভিন্ন প্রযুক্তি সম্পর্কে প্রশিক্ষন প্রদান করা, প্রকল্প এলাকায় বাঁশের প্রযুক্তি বিষয়ক ১০টি প্রদর্শনী প্লট স্থাপন করা, বাঁশ চাষ ব্যবস্থাপনা এবং ব্যবহারের উপর ১৯টি গবেষনা কার্যক্রম পরিচালনা করা। ইতিমধ্যে ভবনের বিভিন্ন কক্ষ সাজানো হয়েছে বাঁশের তৈরী আসবাবপত্র দিয়ে।
সিনিয়র রিসার্চ অফিসার আনিছুর রহমান জানান, ইতিমধ্যে কঞ্চিকলম পদ্ধতিতে বাঁশচাষ এবং বাঁশঝাড় ব্যবস্থাপনা ও রাসায়নিক দ্রব্য প্রয়োগেহ বাঁশ, কাঠ, ছন ইত্যাদি ব্যবহারিক আয়ুস্কাল বৃদ্ধি বিষয়ক দুটি বিষয়ে ২০টি গ্রæপের ৬ শত জনকে প্রশিক্ষন প্রদান করা হয়েছে। দিনাজপুর জেলার খানসামা ও বিরামপুর উপজেলায় ২৩ প্রজাতির বাঁশের প্রদর্শনী প্লট স্থাপন করা হয়েছে। এ এলাকায় ৪ প্রজাতির বাঁশ পাওয়া যায়। বাঁশের তথ্য উপাথ্য নিয়ে গবেষনা কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এর ফলে বাঁশ ও কাঠের আয়ুস্কাল বাড়বে। রংপুর বিভাগে বাঁশের তৈরী পন্যের ব্যবহার বাড়বে। সেই সাথে বাঁশ চাষীরা অর্থনৈতিকভাবে সচ্ছল হবে। দুর হবে বেকারত্ব। তিনি আরো জানান, এ মাসেই আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!