Wed. May 18th, 2022


স্টাফ রিপোর্টারঃ নীলফামারীর জলঢাকায় অন্ত:সত্তা নারীকে দিয়ে চলছে কর্মসৃজন কাজ। এছাড়াও বদলী হিসেবে একাজে ব্যবহার হচ্ছে কোমলমতি শিশুরা। এ দৃশ্য দেখা গেছে জলঢাকা উপজেলার গোলনা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের চিড়াভিজা গোলনায়।
জানা যায়, দ্বিতীয় ফেইজে হতদরিদ্রদের জন্য কর্মসৃজন কর্মসূচী (ইজিপিপি) ৪০ দিন মাটি কাটার মত ঝুকিপূর্ণ কাজে শ্রমিক হিসেবে এসব নারী এবং শিশুরা ব্যবহার হচ্ছে।
সরেজমিনে উপজেলার গোলনা ইউনিয়নের সর্দারপাড়া এলাকায় মাটি কাটা অবস্থায় দেখা যায়, ৯ মাসের অন্ত:সত্তা এক নারীকে। কথা হয় তার সাথে। তিনি জানান, তার নাম কুলসুম। স্বামী শাহজাহান স’মিলে শ্রমিকের কাজ করে। দুই সন্তানসহ ৪ জনের সংসারে অভাবের তাড়নায় সরকারের কর্মসৃজন কর্মসূচী কাজে অংশ নিতে হয়। এসময় মাটি মাথায় নিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করছেন কেন?
এমন প্রশ্নের জবাবে কুলসুম বলেন, কি করব? অভাবের সংসার। তাছাড়া বদলী দেওয়ার মত আমার কেউ নেই। একটি ছেলে আছে, বয়স ১২, আরেকটি ছোট। স্বামী লেবারের কাজ করে। ছুটির বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, না আমাদের কোন ছুটি নেই।
মেম্বার ও ছাররা (স্যার) বলেছেন প্রতিদিন কাজে আসতে হবে। এ বিষয়ে ওই ইউনিয়ন ইউপি সদস্য আনার হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ওনি (কুলসুম) বদলী কাউকে দিতে পারছে না। তার ছেলেকে আসতে বলেছি সেও আসেনা, তাহলে আমি কি করব?
এ বিষয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী হাফিজুর রহমান বলেন, আমরা তো কোন গর্ভবতী নারীকে কাজে আসতে বলিনি। এ বিষয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মইনুল হক বলেন, বিষয়টি অমানবিক।
এ ব্যাপারে গোলনা ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল আলম কবীরের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব হাসান বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে এমনটি হওয়া ঠিক নয়। নারীদের ব্যাপারে সকলের সহনশীল হওয়া দরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!