কামারশালায় ক্রেতার দেখা নেই, কাঠের গুঁড়িরও চাহিদা কম


এসএপ্রিন্সঃ কামারশালায় ক্রেতা নেই। নেই নতুন দা, বঁটি ছুরির বায়না বা অর্ডার। পুরোনো অস্ত্রও শান দিতে আসছে না কেউ। ফলে ঈদের আগেও হাতে তেমন কাজ নেই কামারশালায়। জানতে চাইলে নীলফামারী জেলা শহরের মুরগিহাটি এলাকার দা, বঁটি ও চাপাতির কারিগর শরৎ চন্দ্র কর্মকারের এমন মন্তব্য।
কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, করোনায় লকডাউনে ব্যবসা বাণিজ্য বন্ধ থাকায় মানুষের হাতে টাকা-পয়সা নেই। গ্রামের অনেকেই ২-৩ টা গরু কোরবানি দিতো। এবার একটি গরুর ভাগ দেওয়ার সামর্থ্য নেই অনেকের।
তিনি জানান, কোরবানির চাঁদ উঠলেই এই ব্যবসায় অতিরিক্ত লোক খাটাতে হতো। বেচাকেনাও হতো যথেষ্ট পরিমাণ। ঈদের আয় দিয়ে বছরের ১১ মাস চলে যেত। কিন্ত লকডাউনে মানুষের হাতে টাকা পয়সা না থাকায় ঈদের তেমন বেচাকেনা নাই।
অপরদিকে, কাঠের গুঁড়ির জন্য স’মিলে নেই গ্রাহকের আনাগোনা। এই ঈদে আনন্দ নেই মানুষের মনে, বেড়েছে অর্থনৈতিক সংকট। স্থানীয় একটি স’মিলের মালিক ও সাবেক চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভুট্টো জানান, করোনার কারণে এবার ঈদ বিষাদে পরিণত হয়েছে। অনেকেই (হাঁড়িদার) অংশীদারের অভাবে কোরবানি দিতে পারবে না।
এবার কোরবানিদাতার সংখ্যা কমেছে বলে জানান, নীলফামারীর গাছ বাড়ি এলাকার কাঠ ব্যবসায়ী আবুল কালাম। তিনি জানান, গত বছর ঈদের সময় ৩০০ সিএফটি কাঠের গুঁড়ি বিক্রি হয়েছে। আর এতে ১২ দিনে লাভ হয়েছে প্রায় ২১ হাজার টাকা। এবার ক্রেতার দেখা নাই।
জেলা শহরের ফায়ার সার্ভিস রোড আমতলী এলাকার কারিগর কাঞ্চন মহন্ত কর্মকার জানান, প্রতি বছর ঈদের মৌসুমে বেচাকেনার পরিমাণ বেড়ে যায়। আর এই আয় থেকে সারা বছরের সংসারের খোরাক, পোশাক ও ছেলেমেয়ের লেখাপড়া খরচ চলে যায়। করোনায় মানুষের হাতে টাকা-পয়সা না থাকায় এবার উল্টো চিত্র। বেচাকেনা ও ছুরি-বঁটি তৈরির অর্ডার না পাওয়ায় বিপাকে পড়েছে কারিগররা।
একই এলাকার কারিগর পরিমল চন্দ্র কর্মকার বলেন, এই পেশা আমার বাপ দাদার থেকে নেওয়া। বাবার এই পেশায় প্রায় ২৭ বছর ধরে এই কাজ করে আসছি। তিনি বলেন, মানুষের করোনা আর গরুর অসুখ যেন কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাড়ির পুরনো অস্ত্র দিয়ে এবার ঈদ চালিয়ে দিচ্ছে অনেকে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি আমরা।
জেলা শহরের নিউ বাবুপাড়ার খতিবর রহমান খোকন ও কলেজ পাড়ার মঞ্জুরুল ইসলাম তালুকদার বলেন, আর কয়েকদিন পরে কোরবানির ঈদ। গরু ছাগল জবাই দিতে ও মাংস কাটতে দা, বঁটি ও ছুরির একান্ত প্রয়োজন। তবে গত বছরে তুলনায় এবারে এসব জিনিসপত্রের দাম খানিকটা কম।
জেলা সদরের রামনগর বাজারের করাত কলের মালিক নূরজ্জামান জানান, গত বছর কোরবানির ঈদে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ব্যবসা হয়েছে। এবার কাঠের ব্যবসায় ধস নেমেছে। তবে পুরোনো কাঠের গুঁড়ি কেটে সমান করার জন্য গ্রাহকরা আসছে। তিনি বলেন, কোরবানির ঈদে এটি বাড়তি আয়। এবার কোরবানির ঈদ বলে মনে হচ্ছে না।
নীলফামারীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক আজহারুল ইসলাম জানান, এখনও এ শিল্পের কিছুটা হলেও কদর ধরে রেখেছে কিছু কারখানার মালিক। করোনা সমস্যা কেটে গেলে এই ব্যবসায় আবারও নতুন দিন ফিরে আসবে বলে আশা করেন তিনি।

শর্টলিংকঃ

About নিউজ ডেস্ক

View all posts by নিউজ ডেস্ক →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *