Wed. May 18th, 2022

প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীদের মধ্যে সমঝতা না হওয়ায় এবং সমর্থকদের মধ্যে টান টান উত্তেজনার কারনে অপ্রীতিকর ঘটনার এড়াতে সৈয়দপুর উপজেলা আঃলীগের ত্রি-বাষিকী সম্মেলন রাত ৮টায় সমাপ্ত করা হয়। এ সময় উপজেলা কমিটি বিলুপ্ত করা হলেও নতুন কমিটি ঘোষনা করা হয়নি।
দীর্ঘ প্রায় ১৪ বছর পর নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। আজ মঙ্গলবার(২২ অক্টোবর) সৈয়দপুর রেলওয়ে বিভাগীয় সংস্থার মাঠে শুরু হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন নীলফামারী ২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর এমপি।
জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করে বেলুন উড়িয়ে সম্মেলন আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন। সম্মেলন বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের সংরতি নারী আসনের সংসদ সদস্য ও নীলফামারী জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রাবেয়া আলীম এবং নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তার বক্তব্য দেন নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ মমতাজুল হক। সম্মেলন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) আলহাজ্ব মো. আব্দুস সামাদ মন্ডল।
সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক পদে একাধিক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতায় নামে। সম্মেলনের প্রধান অতিথি ও জেলা কমিটির শীর্ষ নেতারা প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীদের মধ্যে সমঝতার মাধ্যমে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক নির্বাচনের জন্য অনুরোধ করেন। কিন্তু কেউ কাউকে ছাড় দিতে নারাজ হওয়ায় কমিটি ঘোষনা ছাড়াই ওই সম্মেলন সমাপ্ত ঘোষনা করা হয়। সেই সঙ্গে সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটিকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বিলুপ্ত ঘোষনা করে জেলা কমিটির নিয়ন্ত্রনে নেয়া হয়েছে।
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ জানান ঘটনাটি কেন্দ্রীয় কমিটিকে অবগত করে পরবর্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
জানা যায় সভাপতি পদে চারজন প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীদের মধ্যে ছিল সাবেক উপজেলা আঃলীগের সাধারন সম্পাদক আখতার হোসেন বাদল, সহ সভাপতি সেকেন্দর আলী, সদস্য রাশেদুজ্জামান রাশেদ, আজমল হোসেন। সাধারন সম্পাদক পদে ছিলেন জিকো আহম্মেদ ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোকছেদুল মোমিম।
সর্বশেষ বিগত ২০০৫ সালের ৩ এপ্রিল নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
এদিকে সম্মেলনের প্রথম পর্বে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আসাদুজ্জামান নুর তা বক্তব্যে বলেন প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। তা নাহলে দেশ আবারো ষড়যন্ত্রের শিকার হবে। দলীয় নেতাকর্মীদেও দায়িত্ব হচ্ছে দলকে সুসংগঠিত করা। ক্যাসিনো কেলেংকারী থেকে অনেক কিছুই হচ্ছে। তাই আমাদের দলীয় নেতাকর্মীদের আত্মশুদ্ধির সময় এসেছে। আমাদের আত্মসংযম হতে হবে। অন্যায়কারী কখনো মহৎ নেতা হতে পারে না। দেশে দুর্নীতি, অবিচার ও অনিয়ম বন্ধে দলীয় নেতাকর্মীদের কী কিছুই করার নেই? কোনো কাউন্সিলই গুরুত্বহীন নয় দাবি করে তিনি বলেন, প্রতিটি কাউন্সিলেই গুরুত্বপূর্ণ। তাই কাউন্সিলের মাধ্যম ভালো মানুষদের দলের নেতৃত্বে আনতে হবে।

By

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!