অর্থাভাবে ঝড়ে যেতে বসেছে মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পাওয়া তিন মেধাবী


এসএপ্রিন্সঃ
রাব্বী হোসেন, অতুল চন্দ্র বর্ম্মন ও রিফাত আহমেদ মেধা তালিকায় এবারে মেডিকেল কলেজে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পেলেও তা আটকে গেছে চরম আর্থিক দৈন্যতার বেড়াজ্বালে। চিকিৎসক হয়ে সেবা দেয়ার তাদের দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন আজ কাঁচের দেয়ালের মতো ভেঙ্গে পড়েছে। মেডিকেল কলেজে ভর্তি হতে বিভিন্নজনের দ্বারে দ্বারে ধর্ণা দিয়েছে কিন্তু বাড়িয়ে দেয়নি কেউ সহযোগিতার হাত। নীলফামারীর সৈয়দপুর সরকারী বিজ্ঞান কলেজ থেকে মেধা তালিকায় মেডিকেল কলেজে ভর্তি হওযার সুযোগ পাওয়া ৪০জনের মধ্যে এই তিনজনই হতদরিদ্র পরিবারের সন্তান।
রাব্বী হোসেন সৈয়দপুর শহরের নতুন বাবুপাড়ার আব্দুর রশিদ ও ফাহমিনা আক্তার লাইলী তৃতীয় সন্তান। বাবা বিমান বাহিনীর একজন অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী। পেনশনের টাকায় জোড়াতালি দিয়ে চলে সংসার। রাব্বী ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস’এ ভর্তি পরীক্ষায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পান। এসএসসি ও এইচএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে পাস করে। মা একজন গৃহিনী। বড় ছেলে ফরহাদ হোসেন লিমন রংপুর কারমাইকেল কলেজ থেকে উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিষয় নিয়ে মাস্টার্স পাস করে চাকুরীর জন্য ধর্না দিয়ে ফিরছেন। দ্বিতীয় ছেলে আব্দুল্লাহ আল মামুন দিনাজপুর আর্দশ কলেজে ইসলামের ইতিহাস অর্নাস দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। সংসারে আয় করার মতো আর কেউ নেই। বাবার পেনশন দিয়ে নুন আনতে পান্থা ফুরানোর অবস্থা তাদের সংসারে।
অতুল চন্দ্র বর্মন পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার সাকোঁয়া ইউনিয়নের ছত্র শিকারপুর গ্রামের নব কুমার বর্মন ও বাতাসি রানীর দ্বিতীয় সন্তান। দিনভর খেতে খামারে গতর খাটিয়ে যা জুটে তা দিয়ে কোন রকমে চলে সংসার। বাবা-মা দু’জনই নিরক্ষর হলেও একমাত্র ছেলে অতুল মেধায় পরিপুর্ন। এসএসসি ও এইচএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে পাস করে ব্যাপক সাড়া ফেলে দেয় এলাকায়। এবারে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পাওয়ায় তাদের ঘরে উঁকি দেয় চাঁদের আলো।
অতুল চন্দ্র বর্মন জানান, মেডিকেলে ভর্তির সুযোগ পেয়ে খুব খুশি হয়েছিলাম, কিন্তু সেই সুখানুভুতি হারিয়ে এখন বাবার চিন্তক্লিষ্ট দুশ্চিন্তাগ্রস্থ মুখটা দেখে খুব কষ্ট হচ্ছে, আমাদের মতো দরিদ্র পরিবারের সন্তানদের এমন সুযোগ পাওয়া উচিৎ নয়। তার চোখে মুখে হতাশার ছাপ। কারন ভর্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় স্থান হলেও দারিদ্রের বাধা অতিক্রম করে মেডিকেলে ভর্তি হওয়াটা দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে তার জন্য। তার এ সাফল্যে বাবা-মার পর শিক্ষকদের আন্তরিকতার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে সে।
অতুল চন্দ্র বর্মনের পিতা নব কুমার বর্মন জানান, ধার-দেনা ও বিভিন্ন এনজিও থেকে লোন নিয়ে সন্তানকে পড়িয়েছি। মেডিকেলে ভর্তির ফি, বই, কংকাল ক্রয়, আনুষাঙ্গিক খরচসহ পাচঁ বছরের পড়াশুনায় প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। তিনি সমাজের বিত্তশীল লোকদের সহযোগীতা চান।
রিফাত আহম্মেদ দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্চ উপজেলার আদর্শপাড়া গ্রামের আলতাফ হোসেন ও রুবিনা বেগমের ছোট সন্তান। বাবা মিল চাতালে শ্রম বিক্রি করে যা পায় তা দিয়ে টেনে হেচরে সংসার চালিয়ে দুই ছেলের লেখাপড়ার খরচ যোগান দেন। বড় ছেলে ফজলে রাব্বী তোহান জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অনার্স চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। ছোট ছেলে এসএসসি ও এইচএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে পাস করে। এবারে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় রংপুর মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পাওয়ায় তাদের মাথায় বাজ পরে। স্বল্প আয়ের দরিদ্র এই শ্রমিক ভর্তির টাকা যোগান দিতে আজ দিশেহারা। ভর্তি হওয়ার টাকা জোগাড় করতে না পারলে রিফাতের স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাবে।
রিফাত আহম্মেদের মাতা রুবিনা বেগম জানান, আমাদের মাঠে কোনো জমি নেই। শুধু ভিটেটুকু আছে। স্বামীর শ্রম বিক্রির আয়ে কোনো রকমে সংসার চলে। না খেয়ে ছেলে দুইটিকে লেখা-পড়া শিখাচ্ছি। আমার সন্তানের ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পূরনে সকলের সহযোগীতা ও দোয়া চাই।
সৈয়দপুর সরকারী বিজ্ঞান কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম আহম্মেদ ফারুক জানান, এবারে এ কলেজ থেকে শতভাগ পাসসহ ৪০জন দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে। এরমধ্যে কয়েকজন হতদরিদ্র পরিবারের সন্তানও রয়েছে। এরা অত্যান্ত মেধাবী এবং অসম্ভব পরিশ্রমী। কলেজে পড়ার সময় আমরা তাদের বিভিন্নভাবে সাহায্য করেছি। এমন প্রতিভা যেন দারিদ্রের কষাঘাতে হারিয়ে না যায়। এসব প্রতিভাকে বিকশিত করতে সমাজের বিত্তবানদের হাত প্রসারিত করার আহŸান জানান তিনি।

শর্টলিংকঃ

About নিউজ ডেস্ক

View all posts by নিউজ ডেস্ক →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *